ঢাকাসোমবার , ৩১ জানুয়ারি ২০২২
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. কৃষি-কৃষক
  4. খেলার খবর
  5. চাকরী
  6. চিকিৎসা-করোনা
  7. জাতীয়
  8. দেশ-জুড়ে
  9. ধর্ম-কর্ম
  10. প্রযুক্তি খবর
  11. বিনোদন
  12. বিস্ময়কর
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা

নির্বাচন কমিশন আইন বাকশালের মতোই : মির্জা ফখরুল

মানবতা ডেস্ক নিউজ
জানুয়ারি ৩১, ২০২২ ৪:১১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

নির্বাচন কমিশন (ইসি) আইনটি ‘বাকশালের মতোই’ বলে মন্তব্য করেছেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সংসদে পাস হওয়া প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন-২০২২ এর প্রসঙ্গ টেনে গতকাল বিকেলে এক আলোচনা সভায় বিএনপি মহাসচিব এই অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, এখানে কোনো বহুদলীয় গণতন্ত্র নেই। একটা নির্বাচনের লেবাস, যে নির্বাচন তারা দুইটি ইতোমধ্যে করেছে। যেখানে সত্যিকার অর্থে জনগণ তাদের ভোট দেয়ার অধিকার পায়নি। আবার একটা আইনও তৈরি করল কয়েক দিন আগে। ঠিক সেই বাকশালের মতোই। যেটা ১১ মিনিটে হয়েছিল। আর এটা সাত দিনের মধ্যে তড়িঘড়ি করে পাস করেছে। গত ২৭ জানুয়ারি সংসদে বিলটি পাসের পর রাষ্ট্রপতি সম্মতি দেয়ার পরে ২৯ জানুয়ারি রাতে গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার।

স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে বিএনপির জাতীয় কমিটির উদ্যোগে বাকশাল দিবস উপলক্ষে ‘২৫ জানুয়ারি ১৯৭৫ : বাকশাল’ শীর্ষক এই আলোচনা সভা হয়। এতে সারা দেশসহ বিভিন্ন দেশে থাকা দলের প্রবাসী নেতাকর্মীরা অংশ নেন। ভার্চুয়াল এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ‘১৯৭৫ :বাকশাল’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন এবং এই গ্রন্থটি দলের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান জানান। গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে বিএনপি। গ্রন্থের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে সূচনা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট রিসার্চ অ্যান্ড কমিউনিকেশন সেন্টারের পরিচালক সাবেক এমপি জহির উদ্দিন স্বপন।

সভায় মির্জা ফখরুল বলেন, বাকশাল একটি গালিতে পরিণত হয়েছে। এই বাকশালের মধ্য দিয়ে সেদিন দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করা হয়েছিল, রাজনীতিকে ধ্বংস করা হয়েছিল, স্বপ্নকে ধ্বংস করা হয়েছিল। একদলীয় শাসনব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করে তারা দেশ ও জাতিকে গভীর অন্ধকারে ভেতরে নিয়ে গিয়েছিল। আমরা আজকে ঠিক একইভাবে দেখছি আওয়ামী লীগ অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে দেশের অর্থনীতিকে দলীয়করণ করেছে, লুটতরাজের অর্থনীতিতে পরিণত করেছে। আমরা দেখছি যে, রাজনৈতিক দলগুলোর কর্মকাণ্ডকে অত্যন্ত নিষ্ঠুর হাতে দমন করে বিশেষ করে যারা স্বাধীনচেতা গণতান্ত্রিক মানুষ তাদের হত্যা-গুমের মধ্য দিয়ে তাদের ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। প্রতিবাদের যে ভাষা সেই ভাষাকে বন্ধ করা হচ্ছে। বিভিন্ন নিবর্তনমূলক আইন তৈরি করে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টের মতো আইন তৈরি করে যারা কথা বলতে চান তাদের কথা বলাটা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ করে দেয়া হচ্ছে।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে ৪৭ বছর পরে আবার বাকশাল প্রতিষ্ঠার যে নীলনকশা শুরু হয়েছে এই নীলনকশাকে আমাদের প্রতিহত করতে হবে এবং সেটা আমাদের জনগণকে সাথে নিয়েই। আমাদের নেতা তারেক রহমানের নেতৃত্বে, বিএনপির নেতৃত্বে আমাদের এই প্রতিবাদ, এই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ আর গণতন্ত্র এক সাথে যায় না। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫, ’৭৫-এ বাকশাল প্রতিষ্ঠা এবং গত ১৪ বছর আওয়ামী লীগের এই শাসন, বিনা ভোটে নির্বাচিত সরকার, রাতের অন্ধকারে ভোট ডাকাতির সরকার আজকে গায়ের জোরে বাংলাদেশ পরিচালনা করছে। বাংলাদেশেও আজকে সেই বাকশালের চিন্তাচেতনা যেটা অলিখিতভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে। স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে দলের জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব আবদুস সালামের পরিচালনায় এই ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বক্তব্য রাখেন।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।