ঢাকাশনিবার , ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. কৃষি-কৃষক
  4. খেলার খবর
  5. চাকরী
  6. চিকিৎসা-করোনা
  7. জাতীয়
  8. দেশ-জুড়ে
  9. ধর্ম-কর্ম
  10. প্রযুক্তি খবর
  11. বিনোদন
  12. বিস্ময়কর
  13. রাজনীতি
  14. লাইফস্টাইল
  15. শিক্ষা

যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতন, পুলিশ কর্মকর্তা গ্রেপ্তার

মানবতা ডেস্ক নিউজ
ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২২ ২:১৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারপিট ও নির্যাতনের অপরাধে দায়ের করা মামলায় চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শামসুদ্দোহাকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে ঢাকার রাজাবাজার এলাকা থেকে তাকে আটক করে গুলশান থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর শামসুদ্দোহাকে বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় আনা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত পুলিশ পরিদর্শক মো. শামসুদ্দোহা গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার পশ্চিম গোপীনাথপুর গ্রামের নুরুদ্দিন আহম্মেদের ছেলে। বর্তমানে তিনি ঢাকার খিলক্ষেত এলাকার বিকান লেকসিটি, কনকর্ড টাওয়ারে বসবাস করতেন।

ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এম এ জলিল জানান, পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানায় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে কর্মরত। তার স্ত্রী ফারজানা খন্দকার তুলির দায়ের করা নারী নির্যাতন মামলায় তাকে ঢাকার রাজাবাজর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে তাকে আদালতে হাজির করা হবে।

তিনি আরও জানান, বাদীর লোকজন গুলশান থানার সহযোগীতায় শামসুদ্দোহাকে আটক করে। পরে সংবাদ পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালী থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল খায়ের গুলশান থানা থেকে ফরিদপুরে নিয়ে আসেন তাকে।

ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আরও জানান, পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহার স্ত্রী ফাজানা খন্দকার তুলি বাদী হয়ে গত ৯ ফেব্রুয়ারি কোতয়ালী থানায় তার বিরুদ্ধে যৌতুক দাবি, মারপিট ও নির্যাতনের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী ফারজানা খন্দকার তুলি জানান, গত ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট পারিবারিকভাবে শামসুদ্দোহার সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। বিয়ের পর ২০১৯ সালের অক্টোবর মাস পর্যন্ত আমি ফরিদপুরে আমার বাবার বাড়িতেই অবস্থান করি। পরবর্তীতে ওই বছরের নভেম্বর মাসে তার চাকরি করার কারণে যশোরে নিয়ে যায় আমাকে। সেখানে ভাড়া বাসায় বসবাস করতে শুরু করি। এর কয়েকদিন পর থেকেই তার আচরণে ব্যাপক পরিবর্তন লক্ষ্য করি।

তিনি আরও জানান, ওই সময় জানতে পারি অন্য একটি মেয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িত সে। আমি বাধা দিলে ওই সময় থেকেই আমার উপর নির্যাতন শুরু হয়। বিভিন্ন সময় আমাকে মারপিট করতো শামসুদ্দোহা।

তুলি জানান, এর কিছুদিন পর আমার কাছে তার প্রমোশনের জন্য ৭০ লাখ টাকা বাবার কাছ থেকে এনে দিতে বলে। আমি ওই সময় ১৫ লাখ টাকা এনে দিই, কিন্তু সে তাতে খুশি হয়নি। এরপর আরও নির্যাতন বাড়তে থাকে। প্রতিদিন নেশা করে এসে আমাকে মারপিট করতো। ওই সময় আমি সেখান থেকে বাবার বাড়ি চলে আসি। তখন আমি ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বাবার বাড়িতেই আমি পুত্র সন্তানের মা হই। সন্তানের বয়স এখন দুই বছর। সন্তানের মুখ পর্যন্ত এখনও দেখেনি সে।

তিনি আরও জানান, বাবার বাড়িতে আসার পর সে আমাকে ফোন দিয়ে বলে টাকা নিয়ে আসতে পারলে আসো, তা না হলে আসার দরকার নেই। নিরুপায় হয়ে আমি থানায় মামলা দায়ের করি।

ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান জানান, স্ত্রীর দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত পুলিশ পরিদর্শককে বৃহস্পতিবার বিকেলে আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘শামসুদ্দোহা তার স্ত্রীর করা মামলায় গ্রেপ্তার হয়েছে। যেহেতু আমার অধীনে দর্শনা থানায় কর্মরত ছিলেন এ জন্য একটি রিপোর্ট সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।’

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।