দামুড়হুদায় সড়ক দূর্ঘটনায় ননদ ও ভাবির মর্মান্তিক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

ছবি: মানবতা টিভি

বখতিয়ার হোসেন বকুল: দামুড়হুদায় সড়ক দূর্ঘটনায় ননদ ও ভাবির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। আহত মোটরসাইকেল চালক দেবর মনিরুলকে (৩২) মূমুর্ষূ অবস্থায় রাজশাহীতে রেফার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার রাত ৯ টার দিকে একই মোটরসাইকলে চুয়াডাঙ্গা থেকে নিজ বাড়ি দামুড়হুদার হাতিভাঙ্গায় ফেরার সময় দামুড়হুদা-চুয়াডাঙ্গা সড়কে কোষাঘাটাস্থ ইটভাটার অদুরে সড়কের পাশে পড়ে থাকা বিকল ট্রাকের পেছনে ধাক্কা লেগে পিচরোডে আচড়ে পড়ে চালক দেবরসহ ননদ ও ভাবি। এ সময় দামুড়হুদা থেকে চুয়াডাঙ্গা অভিমুখে যাওয়া একটি চলন্ত আলমসাধু তাদের পিষ্ট করে। স্থানীয় লোকজন তাদের মূমুর্ষূ অবস্থায় উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়ার পরপরই মারা যায় ভাবি তানিয়া খাতুন (৩৫)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আধঘন্টার ব্যবধানে মারা যায় ননদ রুমানা খাতুন (২৩)। এ ছাড়া আহত মোটরসাইকেল চালক দেবর মনিরুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রাজশাহীতে রেফার করেন। রাত ১২ টার দিকে মূমুর্ষূ অবস্থায় মনিরুলকে নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সটি রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

ইউপি সদস্য হাতিভাঙ্গা গ্রামের ইব্রাহিম মেম্বার জানান, চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার হাতিভাঙ্গা পূর্বপাড়ার জিনারুল ইসলামের স্ত্রী তানিয়া খাতুন দিন চারেক আগে পিতার বাড়ি চুয়াডাঙ্গা শহরের হাসপাতাল পাড়ায় বেড়াতে যান। গতকাল বুধবার বিকেলে ভাবিকে আনতে মোটরসাইকেলযোগে  চুয়াডাঙ্গায় যায় জিনারুলের ছোট ভাই মনিরুল ও ছোট বোন রুমানা। রাত  সাড়ে ৮ টার দিকে ভাবি ও ছোট বোনকে নিয়ে দেবর মনিরুল একই মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। রাত ৯ টার দিকে দামুড়হুদা-চুয়াডাঙ্গা সড়কে কোষাঘাটাস্থ ইটভাটার অদুরে পৌছুলে চালক মনিরুল মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে পড়ে থাকা বিকল ট্রাকের পেছনে স্বজোরে ধাক্কা মারে। ট্রাকের সাথে ধাক্কা লাগার সাথে সাথে তারা ৩ জনই পিচরোডে আচড়ে পড়ে। এ সময় দামুড়হুদা থেকে চুয়াডাঙ্গা অভিমুখে যাওয়া বস্তাভর্তি একটি চলন্ত আলমসাধু তাদের পিষ্ট করে এবং গাড়ি ফেলে পালিয়ে যায় আলমসাধু চালক। স্থানীয় লোকজন তাদের মূমুর্ষূ অবস্থায় উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়ার পরপরই মারা যায় ভাবি তানিয়া খাতুন (৩৫)। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আধঘন্টার ব্যবধানে মারা যায় ননদ রুমানা খাতুন (২৩)। এ ছাড়া আহত মোটরসাইকেল চালক দেবর মনিরুলের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে রাজশাহীতে রেফার করেন। মনিরুলের নাক ও মুখ দিয়ে প্রচার রক্তক্ষরণ হয়। ইউপি সদস্য ইব্রাহিম মেম্বার আরও জানান, বছর খানেক আগে উপজেলার সুবলপুর গ্রামের আব্দুস সালামের সাথে বিয়ে হয় নিহত রুমানার। সে ৩ মাসের অন্ত:স্বত্তাছিলো। আজ বৃহস্পতিবার সকাল আনুমানিক ১০ টার দিকে নিহত ননদ ও ভাবির জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হতে পারে বলে জানান তিনি।  দামুড়হুদা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই জিয়াউর রহমান জানান, দূর্ঘটনা কবলিত আলমসাধুটি থানায় নেয়া হয়েছে। তবে চালককে পাওয়া যায়নি। আলমসাধুতে বেশকিছু খালি বস্তা আছে। চালকের খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

শেয়ার করুন:

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Youtube Channel Subscribe

মোট ভিজিটর

0091073
Visit Today : 313
Visit Yesterday : 0
This Month : 313
Total Visit : 91073
Who's Online : 12
Your IP Address: 3.235.108.188

Video Gallery