আজ:

২৬ অক্টোবর, ২০২১, ৪:৫২ অপরাহ্ণ
More
    ৪:৫২ অপরাহ্ণ

      নাব্যতা হ্রাসে শিবসা নদীর দ্রুত মৃত্যুতে চলছে দখল প্রতিযোগিতা

      প্রকাশিতঃ

      মোঃ মনিরুল ইসলাম, পাইকগাছা(খুলনা) প্রতিনিধি

      পাইকগাছার ঐতিহ্যবাহী শিবসা নদীতে নাব্যতা হ্রাসে পলি জমে দ্রুত ভরাট হচ্ছে। আর এই সুযোগে ভরাটি প্রায় পুরো নদীটি দখলে সেখানে শুরু হয়েছে রীতিমত প্রতিযোগীতা। পৌর সদর ও উপজেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন নদী ভরাটি বিস্তির্ণ এলাকা দখল করে সেখানে যে যার মত ধান চাষ করলেও এক অজ্ঞাত কারণে সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে।

      - Advertisement -

      আর নদী দখলের এসব সামগ্রিক ঘটনায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। নদী দখলের এসব ঘটনায় সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, পাইকগাছা পৌরসভার কোল ঘেঁষে শিবসা নদী প্রবাহিত। ক’বছর আগেও খর স্রোতে নদীতে চলাচল করত লঞ্চ, স্টীমার, কার্গো। ভরা যৌবনা নদীতে ছিল জোয়ার-ভাটা। পাইকগাছা হতে খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নদী পথে চলাচল ও মালামাল পরিবহনে ব্যবহার হত লঞ্চ,স্টিমার ও ট্রলার। মালামাল আনায়নে অবাধে চলত কার্গো। সদরেই ছিল লঞ্চঘাট, ট্রলার ঘাট, খেঁয়াঘাট। লোকে লোকারণ্য থাকত নদী পথসহ ঘাট এলাকা।

      আর মাত্র ক’বছরের ব্যবধানে এসবই যেন ইতিহাস। এক সময়ের জীবন-জীবিকার প্রাণ ঐতিহ্যের শিবসা মাত্র কয়েক বছরের মধ্যে অতিদ্রুত পলিভরাট হয়ে পরিণত হয়েছে বিরান ভূমিতে। আর শিবসার দ্রুত ভরাটে ভাগ্য বদল হয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালী এক শ্রেণির ভূমি দস্যুদের। সম্প্রতি সেখানে অবৈধভাবে নদী দখলে শুরু হয়েছে রীতিমত প্রতিযোগিতা। ইতোমধ্যে শিবসা দখল করে তৈরী হয়েছে বসতি স্থাপনার পাশাপাশি মাছের ঘের, গড়ে উঠেছে বাগান, পুকুরসহ নানা স্থাপনা। ক্রমান্বয়ে নদী ভরাটে পাশের সমতল ভূমির চেয়ে উঁচুতে অবস্থান করছে নদী।

      এমন পরিস্থিতিতে অতিদ্রুত শিবসা খনন করা নাহলে পাইকগাছা পৌরসভার পাশাপাশি সোলাদানা, লস্কর, গদাইপুর, চাঁদখালী, লতা, দেলুটি ইউনিয়নের বাসিন্দারা পানিবন্ধি হয়ে পড়বে। সরেজমিনে গত ২৭ সেপ্টেম্বর সকালে দেখাযায় শিবসা নদীর মাঝ বরাবর পাইকগাছা পৌর সদরের প্রায় ১৫ বিঘা ভরাটি জমিতে নেট-পাটা দিয়ে ঘিরে সেখানে স্থানীয় ভিলেজ পাইকগাছা গ্রামের মৃত উজির গাজীর ছেলে মোহর আলী গাজী ও আব্দুল গাজী লোকজন নিয়ে ধান রোপন করছে।

      এ ব্যাপারে পাইকগাছা পৌরসভার প্যানেল মেয়র মাহবুবুর রহমান রঞ্জু জানান, এ ভাবে সরকারি নদী ভরাটি জমি নিয়মিত বে-দখলে চলে যাচ্ছে। অতি দ্রুত নদী খননে পাশাপাশি অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে রাতারাতি বেদখলে চলে যাবে গোটা শিবসা। এব্যাপারে পাইকগাছা পাউবো উপসহকারী প্রকৌশলী মোঃ ফরিদউদ্দীন আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিষয়টি তিনিও শুনেছেন। তিনি বর্তমানে বাইরে রয়েছেন। ফিরেই দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলেও জানান পাউবোর মাঠ পর্যায়ের এ কর্মকর্তা।

      আজকের সর্বশেষ

      সব খবর

      এই বিভাগের আরো

      T20 ক্রিকেট লাইভ

      এই সপ্তাহের শীর্ষ দশ

      Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com