আজ:

২১ অক্টোবর, ২০২১, ১২:১৭ অপরাহ্ণ
More
    ১২:১৭ অপরাহ্ণ

      ঝিনাইদহের মধুহাটি ইউনিয়নে ভাতিজার জমি দখল করে চাচার দোকানঘর নির্মাণের অভিযোগ

      প্রকাশিতঃ

      সাইফুল ইসলাম/ ডাকবাং;লা ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

      ঝিনাইদহের মধুহাটি ইউনিয়নে মামুনশিয়া ভিটের পাড়া গ্রামে ভাতিজার জমি দখল করে দোকানঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে চাচা মশিয়ারের বিরুদ্ধে। দখলের সময় সেখানে থাকা ভাতিজার লাগানো বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে পাকা দোকানঘর নির্মাণ করতে যায় চাচা মশিয়ার।

      - Advertisement -

      ভাতিজা কামরুল এই বিষয়ে ঝিনাইদহ সদর থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ কাজ বন্ধ করে দিয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ২ নং মধুহাটি ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের মামুনশিয়া ভিটের পাড়া নামক গ্রামে।

      স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,খোকাই মন্ডল ও আকবর মন্ডল ছিলেন দুই ভাই। খোকাই মন্ডল ছিলেন বড় আর আকবর মন্ডল ছিলেন ছোট। হঠাৎ ছোট ভাই আকবর মন্ডল মৃত্যু বরন করলে জমিজায়গাসহ পরিবারের সব কিছু দেখভালের দায়িত্ব পড়ে বড় ভাই খোকাই মন্ডলের ঘাড়ে।

      এদিকে বড় ভাই খোকাই মন্ডলের এক ছেলে নাম তার মশিয়ার। আর ছোট ভাই আকবর মন্ডলের ছেলে তিনটি, বড় ছেলে আয়ুব মন্ডল,আঃ মান্নান ও ছোট আব্দুল সাত্তার মন্ডল। স্থানীয় গ্রামবাসী ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, আজ থেকে প্রায় ৬০ বছর পূর্বে খোকাই মন্ডল তার বাড়ির ১০২ শতাংশ জমি দুভাগে ভাগ করে দেয়। ৫২ শতাংশ খোকাই মন্ডল এবং ৫২ শতাংশ আকবর মন্ডল। যদিও এখনো পর্যন্ত কারও নিজেদের নামে জমি রেজিষ্ট্রি হয় নি।

      প্রায় ৬০ বছর পর সুযোগ সন্ধানী খোকাই মন্ডলের ছেলে মশিয়ার মন্ডল,মৃত্যু আঃ মান্নানের ছেলে (ভাতিজা) কামরুলের সেই পুকুরভরাট করা জমির উপর জোর পূর্বক রাজনৈতিক প্রভাবে দল-বল সাথে নিয়ে হঠাৎ গত শুক্রবারে ইট বালু এনে দোকানঘর নির্মান করতে গেলে বাঁধা দেয় নিজ ভোগ দখলে থাকা ভাতিজা কামরুল মন্ডল।

      এবিষয়ে স্থানীয় গ্রামবাসীরা বলেন,প্রায় ৬০ বছর ধরে দেখে আসছি এই জমির মালিক মৃত্যু আঃ মান্নানের ছেলে কামরুল মন্ডলের। কিন্তু হঠাৎ গত শুক্রবারে কামরুলের চাচা মশিয়ার বাইরে থেকে অপরিচিত অনেক লোকবল এনে দেখি কামরুলের ভোগ দখলে থাকা রাস্তার পাশের জমিতে দোকানঘর নির্মান করছেন। পরে কামরুল ও তা মা বাঁধা দিলে মশিয়ারের লোকজন তাদের মারধর করতে যায়।

      এবিষয়ে ভুক্তভোগী কামরুল জানান, আমার দাদারা দুই ভাই ছিলেন, আমার দাদা আবুবকর তিনি প্রায় ৬০ বছর পূর্বে মারা যায়। তখন আমার বড় দাদা ১০২ শতাংশ জমি দুই ভাগে ভাগ করে দেয়। তার মধ্যে আমারা ৫২ শতাংশ জমি পায়। দীর্ঘ এতোদিন ধরে সেই জমিতে আমরা ভোগ দখল করে আসছি।

      আর এখন আমার বড় দাদার ছেলে মশিয়ার রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে বাইরে থেকে অপরিচিত অনেক লোকবল এনে আমার প্রাণ নাশকের হুমকি দিয়ে আমার জমিতে সে দোকানঘর নির্মাণ করতে যাচ্ছে। আমি ও আমার মা বাঁধা দিতে গেলে আমাদের মারধর করে তারা। পরে এবিষয়ে ঝিনাইদহ সদর থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ সেই কাজকে বন্ধ করে দেয়। সুতরাং আমি আপনাদের মাধ্যম দিয়ে এর একটা সুষ্ঠ বিচার চায়।

      এবিষয়ে মশিয়ারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,আমি কোন জমি দখলে যায় নি। আমার জমিতে আমি দোকানঘর করতে গিয়েছি।

      এবিষয়ে মধুহাটি ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার জসিম উদ্দিন বলেন, এটা সরিকানা জমি আজ প্রায় ২০-৩০ বছর পূর্বে এই জমি ভাগ হয়। কিন্তু এখন মশিয়ারের ছেলে মেয়ে হয়াতেই তিনি একটু রাস্তার সাইডে যেতে চাচ্ছেন।

      এই বিভাগের আরো

      LEAVE A REPLY

      Please enter your comment!
      Please enter your name here

      এই সপ্তাহের শীর্ষ দশ

      Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com